সংসদ নির্বাচন: আওয়ামী লীগ আর জাতীয় পার্টির বিচিত্র আসন ভাগাভাগির রহস্য কী?

বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের সাথে জাতীয় পার্টির আসন ভাগাভাগির বিষয়টি এখন এমন এক বিচিত্র চেহারা নিয়েছে যে তাদের মধ্যে আদৌ সমঝোতা হয়েছে কিনা তা নিয়েই সন্দেহ দেখা দিয়েছে।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ তাদের মহাজোটের অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টিকে ২৯টি আসন ছেড়ে দিয়েছে। কিন্তু এর বাইরে আরও প্রায় দেড়শ’ আসনকে উন্মুক্ত হিসেবে উল্লেখ করে জাতীয় পার্টি সেগুলোতে তাদের লাঙ্গল প্রতীকে প্রার্থী দিয়েছে। এই আসনগুলোতে নৌকারও প্রার্থী থাকছে। এই পরিস্থিতি হয়েছে কেন?

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা ইঙ্গিত দিয়েছেন যে, মহাজোট থেকে মাত্র ২৯টি আসন পেয়ে তারা সন্তুষ্ট হতে পারেননি।

কিন্তু সেই আসনগুলো তো তারা নিয়েছেন। তার পরে আবার আরও ১৪৫টি আসনে লাঙ্গল প্রতীকে প্রার্থী দেয়া হলো কেন – এ নিয়েই সৃষ্টি হয়েছে রহস্যের ।

দলটির নেতা জেনারেল এরশাদও পর্দার আড়ালে চলে গেছেন।

শেখ হাসিনা ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ
শেখ হাসিনা ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ

মনোনয়ন প্রক্রিয়া শুরুর পর তিনি ছিলেন হাসপাতালে। ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের সময়ও জেনারেল এরশাদ এক ধরণের রহস্য সৃষ্টি করে রেখেছিলেন।এবার দলটির নেতাদের অনেকে মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ তুলেছিলেন প্রকাশ্যে।

বিশ্লেষকদের অনেকে বলছেন, জোটের বাইরে প্রার্থী দেয়ার ক্ষেত্রে দলের ভিতরের চাপ বা পরিস্থিতি সামাল দেয়ার বিষয়টি একটি কারণ হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.